করোনা মহামারিতে ভাগ্যের চাকা খুলছে ইতালিতে অবৈধভাবে বসবাসরত অভিবাসী নাগরিকদের। দুর্যোগ মোকাবেলায় জনসার্থ সংরক্ষণের পাশাপাশি দেশজুড়ে বিশাল কৃষিক্ষেত্রে ব্যাপক উৎপাদন ধরে রাখতে অবৈধ বিদেশিদের বৈধতা দানের রূপরেখা নিয়ে গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই আলোচনা পর্যালোচনা চলছে সরকারের ভেতরে বাইরে।

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মার্কো মিন্নিতি অতি সম্প্রতি 'লা রিপুবলিকা' পত্রিকায় দেয়া বিশেষ সাক্ষাৎকারে বিষদ ব্যাখ্যা দিয়েছেন মহামারি মোকাবেলায় কেন এবং কোন প্রেক্ষাপটে অবৈধ অভিবাসীদের বৈধ করে নেয়ার বিকল্প নেই।

বর্তমান ক্ষমতাসীন কোয়ালিশন সরকারের শরীক দল ডেমোক্রেটিক পার্টির অন্যতম প্রভাবশালী নেতা মার্কো মিন্নিতি ডিসেম্বর ২০১৬ থেকে জুন ২০১৮ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী পাওলো জেন্তিলোনির কেবিনেটে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন। মার্কো মিন্নিতি বলেন, "কোভিড-১৯ অদৃশ্য জীবাণুর বিরুদ্ধে যুদ্ধরত একটি দেশে নিয়ন্ত্রণহীন এমন কোন ভুতুড়ে জনগোষ্ঠী থাকতে পারে না বা থাকা উচিত না যাদের কোন বৈধ পরিচয় নেই। অমানবিক অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে অবৈধভাবে তাঁদের বসবাস অব্যাহত থাকলে মহামারির প্রকোপ আরও বাড়বে ইতালিতে।"

সাবেক এই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, "অবৈধ অভিবাসীদের বৈধ হবার সুযোগ দিয়ে আমরা তাঁদের উপকার করবো না বরং দেশের আপামর জনগণের জন্য একটি স্বাস্থ্যকর পরিবেশ নিশ্চিত করতে চাই আমরা।"

লা রিপুবলিকা পত্রিকার নিজস্ব ভাষ্যমতে, "মার্কো মিন্নিতি'র এই বক্তব্য খুবই যৌক্তিক বর্তমান প্রেক্ষাপটে এবং এতে করে ইতালিতে অবৈধ অভিবাসীদের ঢালাওভাবে বৈধতার পথ প্রশস্ত হতে চলেছে। এর মাধ্যমে অর্থনৈতিক ভাবে ইতালি যেমন লাভবান হবে, তেমনি দেশজুড়ে স্বাস্থ্যকর পরিবেশ নিশ্চিত করার পাশাপাশি কৃষিজমিতে জনবল জোরদার হবে।"

মার্কো মিন্নিতি এর আগে ২০১৩-২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী প্রফেসর এনরিকো লেত্তা সরকার এবং ২০১৪-২০১৬ সালে প্রধানমন্ত্রী মাত্তেও রেনজি সরকার তথা উভয় আমলেই মন্ত্রীপরিষদ বিভাগে সিক্রেট সার্ভিস বিষয়ক আন্ডার সেক্রেটারি ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী প্রফেসর রোমানো প্রোদির কেবিনেটের সহকারী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেন তিনি। এমনকি তারও আগে প্রধানমন্ত্রী মাসসিমো দা'লেমা সরকারের কেবিনেট ডিভিশনের আন্ডার সেক্রেটারি এবং প্রধানমন্ত্রী জুলিয়ানো আমাতো সরকারের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের আন্ডার সেক্রেটারি ছিলেন এই ঝানু রাজনীতিবিদ।

প্রাক্তন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মার্কো মিন্নিতির বক্তব্যের প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী প্রফেসর জিউসেপ্পে কন্তে সরকারের দুই গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীর কথায়। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লুশানা লামোরগেজে এবং কৃষিমন্ত্রী তেরেসা বেল্লানোভা সপ্তাহান্তে 'ইল জোর্নালে' পত্রিকাকে জানিয়েছেন তাঁরা দু'জনেই কাজ করে যাচ্ছেন বর্তমানে ইতালিতে অবস্থানরত অবৈধ অভিবাসীদের আংশিক বা পুরো অংশকেই বৈধ করে নেয়ার ফর্মূলা নিয়ে।

পর্যবেক্ষক মহলের মতে, "এই প্রক্রিয়ায় ইতালিতে নতুন করে ২ থেকে ৬ লাখ অভিবাসী সুযোগ পাবেন বৈধ বসবাসের।"

মাঈনুল ইসলাম নাসিম