আরব আমিরাতের মরু শহর শারজায় বিষক্রিয়ায় ১২ বাংলাদেশী গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে অবস্থান করছে। চিকিৎসার স্বার্থে তাদের পরিচয় গোপন রাখা হলেও তাদের একজনের ছবি ও নাম প্রকাশ করেছে মধ্যপ্রাচ্যের বিখ্যাত অনলাইন গালফ নিউজ। 

গালফ নিউজের খবরে জানা যায়, বিষক্রিয়ায় ১২ বাংলাদেশীদের একজন হলেন মোহাম্মদ আলাল। তবে তিনি আস্তে আস্তে সুস্থ হয়ে উঠছেন। তাকে শারজার আল কাশিমি হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে এবং তাদের মধ্যে তিন জনের অবস্থা সঙ্কটজনক। খবরে আরও জানা যায়, রোববার সকালে শিল্প এলাকা-১০ এ শ্রমিকদের একটি আবাসনে হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়েন ওইসব শ্রমিক। তারা ঘন ঘন বমি করতে থাকেন। একই সঙ্গে মাথা ঘোরার কথাও বলেন তারা। প্রাথমিকভাবে খাদ্যে বিষক্রিয়ায় এমন হতে পারে ধারণা করে কর্তৃপক্ষ তাদের নিয়ে যায় আল কাশিমি ও আল কুয়েত হাসপাতালে।

সেখানে নেয়ার পর চিকিৎসকরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখেন ওই শ্রমিকরা যে ঘরে ঘুমাতেন তার পাশের ঘরেই নিষিদ্ধ রাসায়নিক পদার্থে তৈরি মশা সহ কীটপতঙ্গ তাড়ানোর ওষুধ ছিটিয়েছিল একজন। চিকিৎসকরা মনে করেন, সেই রাসায়নিক পদার্থ বাতাসে ছড়িয়ে তা থেকে বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন ওই বাংলাদেশীরা। আক্রান্তদের মধ্যে মারাত্মক পরিস্থিতি যাদের তাদেরকে রাখা হয়েছে আল কাশিমি হাসপাতালে। বাকিদের নেয়া হয়েছে আল কুয়েত হাসপাতালে। সেখানে তাদেরকে পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টা নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখার কথা। এসব কথা বলেছেন আল কাশিমি হাসপাতালের চিকিৎসক সাফিয়া আল খাজা।

কয়েকদিন আগে এরকম বিষক্রিয়ায় মারা গেছে ২ বছর বয়সী হাবিবা হিশাম আবদুর রহমান। তার ভাই আবদুর রহমানের অবস্থা সঙ্কটময়। এ ঘটনায় সন্দেহজনকভাবে কয়েকজন বাংলাদেশীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

অনলাইন ডেস্ক