জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ বলেছেন, আমরা আর তৃতীয় শক্তি নই। আমরা প্রথম শক্তি। ৯ বছর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় ছিলাম। উই আর নট থার্ড পার্টি। উই আর ফার্স্ট পার্টি।

এরশাদ বলেন, দেশে এখন অশান্তি চলছে। ঘরে থাকলে খুন। বাইরে থাকলে গুম। হলমার্ক, পদ্মা সেতু নিয়ে চলছে নৈরাজ্য। দেশের মানুষ শান্তি চায়। পরিবর্তন চায়। জাতীয় পার্টির মাধ্যমেই দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হবে। দেশে শান্তি ফিরে আসবে। গতকাল শনিবার পার্টির চেয়ারম্যানের বনানীস্থ কার্যালয়ে জাতীয় আইনজীবী ফেডারেশন আয়োজিত এক  মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এরশাদ এসব একথা বলেন। আগামী নির্বাচনে এককভাবে অংশ নেয়ার কথা পুনর্ব্যক্ত করে তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি আজ নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত। ২০০ আসনে প্রার্থী রয়েছে। বাকি ১০০ আসনের প্রার্থী শিগগিরই ঠিক করা হবে। এরশাদ বলেন, সামনের নির্বাচনে কোন দলই একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে না। সরকারি দলের আসন অনেক কমে যাবে। অতীত দুর্নীতি ও অনিয়মের কারণে প্রধান বিরোধী দলকে মানুষ ভোট দেবে না। সরকার গঠনের জন্য জাতীয় পার্টির সুযোগ এসেছে। এটাকে অবশ্যই কাজে লাগাতে হবে। এরশাদ বলেন, সরকার ও প্রধান বিরোধী দলের মধ্যে পরমতসহিষ্ণুতা নেই। জাতীয় পার্টির মধ্যে তা রয়েছে। কোন দলই দেশের কথা ভাবে না। দু’টি দলই কেবল ‘তালগাছ’ চায়। তিনি বলেন, একটি দল ক্ষমতায় গিয়ে বঙ্গবন্ধুর নামে সবকিছু করতে চায়। আরেকটি দল করতে চায় জিয়াউর রহমানের নামে। তারা অন্য কাউকে কোন বিষয়ে কৃতিত্ব দিতে চায় না। অথচ আমি ক্ষমতায় থাকাকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি হলের নামকরণ করেছি বঙ্গবন্ধুর নামে। আরেকটি হলের নামকরণ করেছি জিয়াউর রহমানের নামে। দেশের এমন কোন জায়গা নেই যেখানে আমার উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি। জাতীয় আইনজীবী ফেডারেশনের আহ্বায়ক পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ সিরাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় পার্টিতে নবাগত ব্যারিস্টার দিলারা খন্দকারকে সংবর্ধনা দেয়া হয়। এ সময় পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়া উদ্দিন আহমেদ বাবলু, তাজুল ইসলাম চৌধুরী এবং সুনীল শুভরায়সহ অন্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এ. কে. আজাদ - বার্তা সম্পাদক