আয়ারল্যান্ডে করোনার প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে প্রধানমন্ত্রী লিও ভারাতকার তড়িৎ পদক্ষেপ গ্রহণ করেন, প্রথমে সামাজিক দূরত্ব তারপর অবরুদ্ধ (লকডাউন)।

শুরুতে যেখানে একজন করোনা আক্রান্ত রোগী ১০ জন সুস্থ্য মানুষের সংস্পর্শে এসে কমিউনিটির মধ্য ছড়িয়ে দিতেন এখন সেই হার দাড়িয়েছে ১ জনেরও কম অর্থাৎ একজন করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি একের অধিক ব্যক্তির সংস্পর্শে যাচ্ছে না। এভাবে ক্রমাগত অবস্থার উন্নতি হতে থাকলে লক ডাউন খোলে দেয়া হতে পারে শীঘ্রই।

স্বাস্থ্যকর্মীদের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় সাধারণ জনগণের অব্যাহত সমর্থন অনেক প্রাণ বাঁচিয়ে দিয়েছে অন্যত্থায় আয়ারল্যান্ডের হাসপাতালগুলোতে স্থান সংকুলান হতো না এবং আইসিইউতে সকলের জন্য সীট বরাদ্দ দেওয়া সম্ভব হতোনা। আজকের নতুন পরিসংখ্যান অনুযায়ী আয়ারল্যান্ডে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাড়িয়েছে ১৪,৭৫৮ কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য এখন পর্যন্ত ৫৪১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। আজ সংবাদ সম্মেলনে প্রধান মেডিক্যাল অফিসার ডাক্তার টনি হলোহান এসব কথা বলেন।

ডাক্তার হলোহান আরো বলেন, "ভাইরাসের সংক্রমন ক্রামাগত নিম্নমুখী।"

সংক্ষিপ্ত ও অনূদিত, ওবায়দুর রহমান রুহেল
ডুনেগাল ডেইলী