পৃথিবীর ধর্মপ্রান মুসলমানরা সারা বছর অপেক্ষায় থাকেন দোয়া ও রহমতের রমজান মাসটির জন্য। নুতন টুপি, আতর, তসবিহ ক্রয়ে প্রস্তুতি নেয়া ইবাদত বন্দেগীর।

পৃথিবীর পুরো মানবজাতির মঙ্গল কামনায় যখন অধিকাংশ মুসলমান প্রস্তুতি নিচ্ছেন, তখন কিছু মুনাফালোভী মুসলমান নামধারী ব্যাবসায়ীদের হীনমন্যতায় ভোগান্তি বাড়ছে জনমনে। প্রায় প্রতি বছরই রমজান আসার আগেই কৃত্তিম সংকট সৃস্টি করে দাম বাড়িয়ে দেয়া অভ্যাসে পরিনত হয়ে গেছে।

পন্য সংকট, পরিবহন, উৎপাদন, উচ্চ দামে ক্রয় থেকে শুরু করে নিজস্ব তৈরীর নানান অজুহাত নিত্যদিনের। এরপরে এখন নুতন করে জোগ হলো করোনা ইস্যু। ক’দিন আগেও যে পিঁয়াজ ২০-২৫ টাকা, তা এখন ৬০-৬৫ টাকা। বেড়েছে ছোলা, তৈল, চিনি, মাছ মাংস, মসলা, চাল থেকে শুরু করে অধিকাংশ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের। ভ্রাম্যমান আদালত বাজার নিয়ন্ত্রনে মূল্য নির্ধারনের নির্দেশ দিলেও মানছেননা অধিকাংশ ব্যাবসায়ীরা। পুরো দেশে বানিজ্য মন্ত্রনালয়ের ২৮ টি বাজার মনিটরিং টিম বাজার পরিদর্শন করছেন, বাজারের সংখ্যার তুলনায় এ টিমের সদস্য সংখ্যা খুব বেশী নয়। এ সংখ্যা দ্বিগুন করলে এ অবস্থার একটু হলেও উন্নতি হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিস্টরা।

দ্রব্যমূল্য উর্ধ্বগতি রোধে সরকারের অনেক পদক্ষেপই প্রশংসার দাবী রাখে, কিন্তু পৃথিবীর কোন রাস্ট্রই জনগনের সহায়তা, সচেতনতা ছারা সফলতার আলোর মুখ দেখেনা। সরকারকে বিব্রতকর অবস্থায় ফেলতেও কিছু কুচ্ক্রী মহল এ রমজান মাসে কৃত্তিম সংকট সৃস্টি করে মূল্য বৃদ্ধি করার খবরও উড়িয়ে দেয়া যায়না। দেশকে সুস্থ রাখতে হলে দেশের মানুষকে সুস্থ মানসিকতা থাকতে হবে, আর দেশের মানুষের নৈতিক অবক্ষয়ের পচন ধরলে শুধু সরকারকে গালি দেয়ার মানসিকতাই তৈরী হবে। জনগনের দ্বারাই সরকার, যে দেশের জনগন যত সচেতন সে দেশের সরকার তত শক্তিশালী। করোনার এ দূর্যোগে, যেখানে প্রতিনিয়ত হাজার হাজার মানুষের মৃত্যু হচ্ছে, সেখানে এখনও মুনাফালোভীরা হিংস্র হয়ে সাধারন মানুষের খাদ্যদ্রব্যের উপর ঝাপিয়ে পরছে। ভয় নেই মৃত্যুর, ভয় নেই মানবিকতা রক্ষার।

গতকালই খবরের পাতায় এক ভিখারীর নিজের ঘর তৈরীর জন্য দু টাকা, এক টাকা করে জমানো দশ হাজার টাকার পুরোটাই করোনার ক্ষতিগ্রস্ত দুস্থদের মাঝে বিলিয়ে দেয়ার সুখের খবরে হেসেছে মানবিকতা। আর সাথে পুরো জাতির লোভী মানুষের চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিলেন- মানুষ হয়ে জন্মালে মানুষ নাম হয় সত্য, কিন্তু মানবতাবোধ সম্প্ন্ন গুনী মানুষ হয়না, যা সভ্য ও সুন্দর জাতি গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। করোনার এ দূর্যোগে দ্রব্য মূল্যের উর্ধ্বগতি রোধে সরকারকে আরো কঠোর হওয়ার পাশাপাশি মনিটরিং ব্যাবস্থা আরো জোরদার করার দাবী সাধারন নাগরিকের। দরকার হলে জরুরী কঠোর আইন করে হলেও এ অবস্থার উন্নতি করতে হবে।

সৈয়দ জুয়েল (সাংবাদিক)
গলওয়ে, আয়ারল্যান্ড